মেডিকেল/ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ ও এমবিবিএস / বিডিএস ভর্তি-ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের জন্যে কিছু টিপস।

মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা/ডেন্টাল ভর্তি পরিক্ষা /AFMC-AMC আর্মি মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা ২০২০-২০২১ বিজ্ঞপ্তি ও রেজাল্ট 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০

এমবিবিএস/বিডিএস মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা ২০২০-২০২১

সূচিপত্র 

এমবিবিএস / মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা বিজ্ঞপ্তি

আর্ম ফোর্সেস আর্মি মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা বিজ্ঞপ্তি 
বিডিএস / ডেন্টাল ভর্তি পরিক্ষা বিজ্ঞপ্তি
মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষার টিপস ও প্রস্তুতি নেওয়ার জন্যে যা জানা আবশ্যক 
আরো জেনে নিন: 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা সর্বশেষ খবর ২০২১

আজ ২ এপ্রিল ২০২১ মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন ১,২২,৭৬১ জন। ৪৭টি সরকারি মেডিকেল কলেজে ৪,৩৫০ জন আর ৭০টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ৬,৩৪০ জন সহ সর্বমোট ১০,৬৯০ জন মেডিকেল কলেজে ভর্তি হয়ে ডাক্তার হওয়ার সুযোগ পাবেন।

মেডিকেল ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ও পরিক্ষা ২০২১-২২

মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষার্থীগন অনলাইনে মেডিকেল ভর্তি নীতিমালা মেডিকেল ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১-২০২২ অনুযায়ী আবেদন করতে পারবেন। বিজ্ঞপ্তি অনুসারে এবারও ভর্তির আবেদনের যোগ্যতা এসএসসি ও এইচএসসি মিলিয়ে মোট GPA-9 নির্ধারিত করা হয়েছে ।২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে সকল সরকারী ও বেসরকারী মেডিকেল কলেজে MBBS(bachelor of medicine and bachelor of surgery) কোর্সে ভর্তির আবেদন মেডিকেল ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১-২০২২ স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এর www.dghs.gov.bd ওয়েবসাইটে প্রকাশ হবে।



মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার যোগ্যতা

মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা ২০২১-২০২২ যোগ্যতা-বাংলাদেশের নাগরিক শিক্ষার্থী যারা ইংরেজি 2018/2019 সালে SSC/দাখিল বা সমমানের পরীক্ষায় এবং ইংরেজি ২০১২০/২০২১ সালে HSC/আলিম বা সমমানের উভয় পরীক্ষায় পদার্থ, রসায়ন ও জীববিদ্যাসহ সকল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন তারা ভর্তির আবেদন করার যােগ্য বিবেচিত হবেন। ইংরেজি ২০১৮ সালের আগের SSC/সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্র বা ছাত্রীরা মেডিকেল ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১-২২ আবেদনের যােগ্য বলে বিবেচিত হবেন না। সকল দেশী ও বিদেশী শিক্ষা কার্যক্রমে এসএসসি/দাখিল/সমমান ও HSC/আলিম/সমমান দুটি পরীক্ষায় মােট জিপিএ কমপক্ষে 9.00 হতে হবে । দেশের সকল উপজাতীয় ও পার্বত্য জেলার অ-উপজাতীয় ভর্তি পরিক্ষার্থী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে SSC/দাখিল/সমমান ও HSC/আলিম/সমমান পরীক্ষায় মােট GPA মিনিমাম 8.00 হতে হবে। তবে এককভাবে কোন পরীক্ষায় জিপিএ 3.50 -এর কম হলে আবেদনের যােগ্য বলে বিবেচিত হবেন না।

Read more: Tips on Medical Treatment in India

সকলের জন্যে HSC/আলিম/সমমান পরীক্ষায় জীববিজ্ঞানে মিনিমাম জিপিএ 3.50 থাকতে হবে।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার মানবন্টন

  • 100 নম্বরের 100 (একশত)টি MCQ প্রশ্নের 1 ঘণ্টার পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

লিখিত পরীক্ষায় বিষয়ভিত্তিক নম্বর :–

  1. Biology -30;
  2. Chemistry - 25;
  3. Physics - 20;
  4. Ebglish - 15;
  5. Genarel knowledge - 10( বাংলাদেশ,ও মুক্তিযুদ্ধ) ;

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় নম্বর কর্তন

2021 সনের শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস বা বিডিএস ভর্তি পরীক্ষায় আগের বছরের(2020) HSC পরীক্ষায় উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীদের সর্বমােট নম্বর (SSC/দাখিল/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ এর 15 গুণ 

এসএসসি জিপিএ * 15

যদি কেউ জিপিএ 5 পেয়ে থাকে তাহলে 

5*15=75 স্কোর। 

HSC/আলিম/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ-এর ২৫ গুণ

এসএসসি জিপিএ * 25

যদি কেউ জিপিএ 5 পেয়ে থাকে তাহলে 

5*25=125 স্কোর। 


★GPA এর উপর মোট স্কোর= 75+125=200

★MCQ থাকবে 100 নম্বরের। 

MBBS admission Exam/Medical Admission Test 2021 Details on English.

সেকেন্ড টাইম মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা 

সেকেন্ড টাইম ভর্তি পরিক্ষার্থীদের ভর্তি পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর থেকে ০৫ (পাচ) নম্বর কর্তন করে এবং আগের বৎসরের কেউ চান্স পেয়ে সরকারি মেডিকেল বা ডেন্টাল কলেজ/ইউনিট-এ ভর্তিকৃত ছাত্র/ছাত্রীদের ক্ষেত্রে মােট প্রাপ্ত নম্বর থেকে 7.5 নম্বর কর্তন করে মেধা। তালিকা তৈরি করা হবে। এমসিকিউ পরীক্ষায় প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য 0.25 নম্বর কর্তন করা হবে।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২১-২০২২ পাশ নম্বর

  • লিখিত(এমসিকিউ) পরীক্ষায় 100 নম্বরের মধ্যে মিনিমাম 40 নম্বর পেতে হবে পাশ করার জন্যে। লিখিত পরীক্ষায় 40 নম্বরের কম নম্বর যারা পাবে তারা অকৃতকার্য বলে গণ্য হবেন। শুধুমাত্র কৃতকার্য বা পাশ করা পরীক্ষার্থীদের মেধা তালিকায় বা মেরিট লিস্টে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

আরও  জানুন:

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় জিপিএ- এর উপর নম্বর হিসাব 

SSC ও HSC পরীক্ষায় প্রাপ্ত GPA মােট ২০০ নম্বর হিসেবে বিবেচনা করে স্কোর হিসাব করা হবে।

ক) SSC/দাখিল/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত GPA-এর ১৫ গুণ=৭৫ নম্বর (সর্বোচ্চ)

খ) HSC/আলিম/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত GPA-এর ২৫ গুণ=১২৫ নম্বর (সর্বোচ্চ)

লিখিত ভর্তি পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর এবং  SSC/দাখিল/সমমান ও HSC/আলিম/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্তনম্বরের যােগফলের ভিত্তিতে মেধা তালিকা তৈরি করা হবে।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২১-২০২২ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার লিংক www.dghs.gov.bd

এর জন্য Online ফরম পূরণের নিয়ম ও ভর্তি বিষয়ে যাবতীয় বিস্তারিত তথ্য নিচের ওয়েবসাইট গুলোতে পাওয়া যাবে। 

1)http://aglis.teletalk.com.bd,

2) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়

3)স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২১-২০২২ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার আবেদন ফি কত টাকা? 

  • মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ এর আবেদন ফি ১০০০(একহাজার) টাকা ছিল, মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা ২০২১-২২ এর সম্ভাব্য আবেদন ফি ১০০০ টাকা হবে।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২১-২০২২ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু হবে কত তারিখ থেকে?

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২১-২২ এর আবেদনের  সময় ও ঘোষণা এখনো আসেনি, আসলে আপডেট করা হবে। 

  • মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ শুরু হবে  ১১ ফেব্রুয়ারি দুপুর ১২ টা থেকে ০১ মার্চ রাত ১১.৫৯ পর্যন্ত।
  •  ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২১
  • অনলাইন মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা  আবেদনের সময় :১১ ফেব্রুয়ারি ২০২১ দুপুর ১২ টা থেকে ০১ মার্চ ২০২১ রাত ১১.৫৯ পর্যন্ত।
  • অনলাইন আবেদনের টাকা জমাদানের শেষ তারিখ : ০২ মার্চ ২০২১, রাত ১১.৫৯
  • প্রবেশ পত্র বিতরণ : ২০ - ২৫ মার্চ ২০২১ পর্যন্ত।
  • ভর্তি পরীক্ষার তারিখ : ০২ এপ্রিল ২০২১, সকাল ১০ টা - ১১ টা
  • তথ্যসূত্র :https://dghs.gov.bd/index.php/bd/home/5647-2021-02-08-06-26-32

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২১-২২ এডমিট কার্ড

বেশপত্র সংগ্রহের লিংক: http://dghs.teletalk.com.bd/mbbs/index.php
উপরের লিংক থেকে এডমিট কার্ড ডাউনলোড করে নিন।

এখানে ভর্তি পরিক্ষা মডেল টেস্ট দিন 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা কবে হবে? 

  • মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা ২০২০-২০২১  হবে আগামি ২ এপ্রিল ২০২১ তারিখে হবে।ভর্তি পরীক্ষার তারিখ : ০২ এপ্রিল ২০২১, সকাল ১০ টা - ১১ টা
  •  মাসের ২ এপ্রিলে মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এইচএসসি এর পরীক্ষার রেজাল্ট দিতে দেরি হওয়ার জন্যে মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা পিছিয়ে যাচ্ছে। ২ এপ্রিলে মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা হবে এটি এখন পর্যন্ত সবচেয়ে নির্ভরশীল তথ্য। তোমরা পড়াশোন কর। 
  • এমবিবিএস রেজাল্ট দেখতে নিচে যান।

( আরও পড়ুন ঃ বিসিএস গাইডলাইন, বিসিএস নিয়ে বিস্তারিত)

বর্তমানে সরকারী মেডিকেল কলেজ সংখ্যা কয়টি? 

বর্তমানে বেসরকারী/প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ সংখ্যা কয়টি? 

  • বর্তমানে সরকারী মেডিকেল কলেজ সংখ্যা ৬৯ টি ( সর্বশেষ তথ্যসূত্র) । 


মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার রেজাল্ট দিবে কত তারিখে?

  • মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার রেজাল পাব্লিশ হবে ৪ এপ্রিল ২০২১ তারিখে।
  • মেডিকেল ভর্তি রেজাল্ট ২০২১,মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষার ফলাফল দেখতে নিচে যান, নিচে দেওয়া বক্স এ রোল নম্বর দিয়ে সাবমিট করুন আর সাথে সাথে পেয়ে যাবেন আপনার মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা রেজাল্ট ২০২০-২১।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২১ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার সরকারি আসন সংখ্যা কয়টি?

  • মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ সালের বর্তমান সরকারি আসন সংখ্যা ৪৩৫০ টি ( সর্বশেষ তথ্যমতে)। 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার বেসরকারি আসন সংখ্যা কয়টি

  • মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ সালের বর্তমান বেসরকারি আসন সংখ্যা ৬২৫০ টি ( সর্বশেষ তথ্যমতে)। 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার কয়দিন পর রেজাল্ট দিবে?

  • মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা হওয়ার সাধারণত তিনদিনের মদ্ধে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল দেওয়া হয় (তবে কখনো কখনো কমে বেশি হতে পারে) । 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২১-২০২২ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার রেজাল্ট এর লিংক কোনটি?www.dghs.gov.bd 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২১-২০২২ কবে হবে?

  • আগামী ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা ২০২১-২০২২ মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা ২০২১ সালের শেষের দিকে হবে যদি করোনা পরিস্থিতি ভালো থাকে অথবা ২০২২ সালের শুরুর দিকে হবে বলে ধারণা করছি, এ বিষয়ে সঠিক নোটিশ আসলে আমরা পরিবর্তন করে দিবো, তাই আপনারা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট চোখ রাখুন।
  •  তবে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২১ অনুষ্ঠিত হয়ে গেছে গত ২ এপ্রিল ২০২১।
  • আর্ম ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ ভর্তি পরীক্ষা গত ১৪ আগষ্ট, ২০২১ হয়ে হয়ে গেছে।
  •  ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা হবে আগামি ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১। 
  • এমবিবিএস এর অনলাইনে আবেদন শুরু হয়েছিল জানুয়ারি ২০২০ থেকে জানুয়ারি ২০২০ তারিখ পর্যন্ত এবং বিডিএস এর অনলাইনে আবেদন শুরু হয়েছিল ফেব্রুয়ারী ২০২০ থেকে ফেব্রুয়ারী ২০২০ তারিখ পর্যন্ত।

মেডিকেল ভর্তি আবেদন ফি জমাদানের পদ্ধতি


আবেদন ফি জমা দেয়ার পদ্ধতি নিচে বর্ণনা করা হল-

টেলিটকের প্রিপেইড সিম যুক্ত মােবাইল ফোনের Message অপশনে গিয়ে MBBS লিখে, <স্পেস> দিয়ে User ID লিখে SMS পাঠাতে হবে ১৬২২২ নম্বরে।

যেভাবে লিখবেন তার নমুনা: MBBS<Space>DGHIad লিখে 16222 নম্বরে পাঠান।

ফিরতি পাওয়া এসএমএস এ একটি পিন (pin) নম্বর পাবেন, প্রার্থীর নাম এবং পরীক্ষার ফিস হিসেবে ১০০০ টাকা কেটে রাখার তথ্য দিয়ে অনুমতি চাওয়া হবে। টাকা কেটে রাখার অনুমতি দেয়ার জন্য আবার আরেকটি মেসেজ/এসএমএস 16222 নম্বরেবপাঠাতে হবে।

Message অপশনে যাবেন তারপর MBBS লিখে, স্পেস দিবেন তারপর YES লিখে স্পেস দিয়ে আগের মেসেজ এ পাওয়া পিন নম্বর (pin) লিখে স্পেস দিয়ে আপনার পছন্দের সর্বোচ্চ চারটি Centre Code কমা দিয়ে লিখে 16222 নম্বরে SMS সেন্ড করবেন।

দ্বিতীয় মেসেজ যেভাবে লিখবেন তার নমুনা:  MBBS<Space>YES<Space> 123456<Space> 11,15,20,30 টাইপ করে সেন্ড করুন 16222 নম্বরে।

সঠিকভাবে পিন নম্বর দিয়ে এসএমএস যাওয়ার পর আপনার টেলিটক Prepaid সিম যুক্ত মােবাইল থেকে পরীক্ষার ফির জন্যে ১০০০ টাকা কেটে নেওয়া হবে এবং পরীক্ষার্থীকে ফিরতি SMS-এ পরীক্ষা কেন্দ্রে(যেখানে পরীক্ষা দিবেন) তার নাম জানিয়ে একটি User ID ও Password পাঠানো হবে।

পরবর্তীতে সেই User ID ও Password ব্যবহার করে আপনার প্রবেশপত্র(এডমিট কার্ড) ডাউনলোড করতে হবে তাই এসএমএস গুলো ডিলিট করবেন না।

মেডিকেল ভর্তি আবেদনের নিয়মাবলী


মেডিকেল ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা নিজেরাই অনলাইনের মাধ্যমে তোমরা তোমাদের আবেদনপত্র জমা দিতে পারবে । মেডিকেলে এমবিবিএস ভর্তি বিষয়ক ওয়েবসাইটের লিংক www.dghs.teletalk.com.bd. আবেদনের নিয়মাবলী নিচে বর্ণনা করা হল-
প্রথমে dghs এর ওয়েবসাইট 
http://dghs.teletalk.com.bd এ গিয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে ফ্রম পুরন করে নিবে। ফ্রম পূরণ করতে যেসব তথ্য প্রয়োজন ঃ

স্ক্যান করা ছবি

স্ক্যান করা/ ডিজিটাল ক্যামেরায় তােলা ছবি দিতে হবে ছবির রেজুলেশন বা মাপ হবে 300 x 300 pixel । তবে ছবির সাইজ 100 KB এর বেশী হলে আপলোড হবেনা তাই অবশ্যই ছবির সাইজ কমিয়ে নিতে হবে ।

স্বাক্ষর লাগবে

একটি সাদা কাগজে ভালোভাবে স্বাক্ষর করবে তারপর সেটি স্ক্যান করবে । এক্ষেত্রেও স্ক্যান করা ছবি মাপ 300 x 80 pixel যেন হয় । তবে এক্ষেত্রে ছবির সাইজ 60 KB এর নিচে হতে হবে।

আবেদন কারির ঠিকানা 

আবেদন কারির ডিস্ট্রিক্ট বা জেলা, বর্তমান ঠিকানা ও স্থায়ী ঠিকানা (জেলা, থানা বা উপজেলা, স্থানীয় পােস্ট কোড ইত্যাদি যাবতীয় তথ্য) লিখতে হবে ।

পছন্দের মেডিকেল কলেজ তালিকা

 আবেদন কারির মেডিকেল কলেজগুলির নাম নিজের পছন্দের র‍্যানকিং ক্রমানুসারে সাজিয়ে লিখে রাখতে হবে পছন্দ তালিকা আগে থেকেই ঠিক করে রেখো না হলে পরবর্তীতে মাইগ্রেশনের জন্যে আরেকটা পেরায় পড়তে হবে। আর একমেডিকেল কলেসমূহের তালিকা বিজ্ঞপ্তিতে দেওয়া আছে । তালিকা বিজ্ঞপ্তি থেকে দেখে নিও। অথবা তোমাদের ভর্তি গাইড গুলোতেও দেওয়া থাকে।

SSC& HSC পরীক্ষার তথ্য ও দিতে হবে

তথ্য যেন ভুল না হয় তাই আগের মার্কসিট এর ফটোকপি সামনে রেখো।

AFMC-AMC আর্মি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস ভর্তি বিজ্ঞপ্তি  ২০২০-২০২১

আর্ম ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ ভর্তি পরিক্ষা


আর্মি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ আর্মি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার আবেদন ফি কত টাকা? 

  • AFMC-AMC আর্মি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ এর আবেদন ফি ১০০০(একহাজার) টাকা। 

আর্মি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২১-২০২২ আর্মি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু হবে কত তারিখ থেকে?

  • নতুন বিজ্ঞপ্তি আসলে জানানো হবে।
  • (AFMC/AMC) আর্ম ফোর্সেস মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ হয়েছে গত ১৪ আগষ্ট, ২০২১ তারিখে।দেশে লকডাউনের কারনে পরীক্ষা প্রথমে স্থগিত করা হয়েছিল, পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পরীক্ষা নিয়ে নেওয়া হয়েছে।

AFMC-AMC আর্মি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা কবে হবে? 

  • (AFMC/AMC) আর্ম ফোর্সেস মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ হয়েছে গত ১৪ আগষ্ট, ২০২১ তারিখে।দেশে লকডাউনের কারনে পরীক্ষা প্রথমে স্থগিত করা হয়েছিল, পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পরীক্ষা নিয়ে নেওয়া হয়েছে।

বর্তমানে AFMC-AMC আর্মি মেডিকেল/ আর্ম ফোর্স মেডিকেল কলেজ সংখ্যা কয়টি? 

  • বর্তমানে সরকারী AFMC-AMC আর্মি মেডিকেল কলেজ সংখ্যা  ৬ টি (সর্বশেষ তথ্যসূত্র) । 

আর্ম ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ গুলো হল:

  1. আর্ম ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ, কুর্মিটোলা 
  2. আর্মি মেডিকেল কলেজ যশোর, 
  3. আর্মি মেডিকেল কলেজ বগুড়া, 
  4. আর্মি মেডিকেল কলেজ সিলেট, 
  5. আর্মি মেডিকেল কলেজ রংপুর, 
  6. আর্মি মেডিকেল কলেজ চট্টগ্রাম।

AFMC-AMC আর্মি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১  আর্মি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার আবেদন ফ্রম পূরণ 

  • আর্মড ফোর্স মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০ -২০২১ এর ফ্রম পূরণ করবেন http://afmc.teletalk.com.bd/ ওয়েবসাইটে গিয়ে। 

আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল ভর্তির ন্যূনতম যোগ্যতা

শিক্ষাগত যোগ্যতা


এসএসসি/দাখিল/সমমান পাশঃ ২০১৬/২০১৭

এইচএসসি/আলিম/সমমান পাশঃ ২০১৮/২০১৯

আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল ক্যাটাগরিতে অবশ্যই এইচএসসি/ HSC/আলিম ও এসএসসি/SSC/দাখিল দুই পরীক্ষায় মোট জিপিএ ১০.০০ পেয়ে পাশ করতে হবে।
এখানে ভর্তি পরিক্ষা মডেল টেস্ট দিন

 আর্মি মেডিকেল ক্যাটাগরিতে ভর্তিচ্ছু প্রার্থীকে অবশ্যই HSC ও SSC দুই পরীক্ষায় মোট GPA ন্যূনতম  9 পেয়ে পাশ করতে হবে।তবে শুধু মাত্র উপজাতীয়দের জন্যে উপজাতি কোটা থাকলে সেক্ষেত্রে দুই পরীক্ষায় মোট GPA minimum 8.00 পেয়ে পাশ করতে হবে. প্রতি পরীক্ষাতে GPA minimum 3.50 থাকতে হবে

উভয় ক্ষেত্রেই পরীক্ষার্থী কে এইচএসসি/সমমান/আলিম পরীক্ষায় জীববিজ্ঞানে GPA minimum 3.50 পেতে হবে।

আর্মি মেডিকেলে শারিরিক যোগ্যাতা

মেডিক্যাল বোর্ড এর দ্বারা হেলথ চেকাপ করাতে হবে

আর্মি মেডিক্যাল ক্যাটাগরির জন্যঃ

পুরুষদের ক্ষেত্রে শারিরীক যোগ্যতা (ন্যূনতম)

উচ্চতাঃ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি
ওজনঃ৪৫.৪৫ কেজি
বুকের মাপঃস্বাভাবিক- ৭৬ সেঃমিঃ সম্প্রসারিত-৮১ সেঃমিঃ
দৃষ্টি শক্তিঃ
±1.5 ডায়াপ্টার spherical;
±1.0 ডায়াপ্টার cylindrical

অন্যান্য যোগ্যতা
প্রার্থীকে বাংলাদেশের নাগরি

মহিলাদের ক্ষেত্রে শারিরীক যোগ্যতা (ন্যূনতম)

উচ্চতা : 5 ফুট ও 2 ইঞ্চি
ওজন: 40.90 কেজি
স্বাভাবিক 71cm সম্প্রসারিত 76cm
দৃষ্টি শক্তিঃ
± 1.5 ডায়াপ্টার spherical;
± 1.0 ডায়াপ্টার cylindrical।

অন্যান্য যোগ্যতা
প্রার্থীকে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে
01 জুলাই 2019 তারিখে বয়স ম্যাক্সিমাম 20 বছর হতে পারবে এর বেশি হওয়া যাবেনা।

আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি ও নম্বর বিভাজন ২০২১


লিখিত MCQ পরিক্ষা = ১০০ নম্বর। 
বিষয়ভিত্তিক নম্বর বিভাজন
পরীক্ষার বিষয় নম্বর
  • পদার্থ বিদজ্ঞান - ৩০
  • রসায়ন বিজ্ঞান - ৩০
  • জীব বিজ্ঞান- ৩০
  • ইংরেজী - ০৫
  • সাধারন - ০৫ (জ্ঞানবাংলাদেশের ইতিহাস ও সংস্কৃতি)

 লিখিত পরীক্ষায় প্রতিটি ভুল উত্তর প্রদানের জন্য ০.২৫ নম্বর মাইনাস করা হবে
শুধুমাত্র কৃতকার্য পরীক্ষার্থীদের মেরিটলিস্ট এ অন্তর্ভূক্ত করা হবে।

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১

ডেন্টাল ভর্তি পরিক্ষা প্রস্তুতি ও টিপস


ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার আবেদন ফি কত টাকা? 

  • ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ এর আবেদন ফি ১০০০(একহাজার) টাকা। 

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু হবে কত তারিখ থেকে?

  • ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা আবেদনের সময় এখনো নির্দেশনা আসেনি, এইচএসসি রেজাল্টের পরেই সব নির্দেশনা চলে আসবে আশা করছি। ডেন্টাল ভর্তি পরিক্ষা আগামী ৩০ এপ্রিলে হবে।

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা কবে হবে? 

২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রছাত্রীদের ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১। ডেন্টাল ভর্তি পরিক্ষা আগামী ১০ সেপ্টেম্বরে হবে।

বর্তমানে সরকারী ডেন্টাল কলেজ সংখ্যা কয়টি? 

বর্তমানে সরকারী ডেন্টাল কলেজ সংখ্যা  ৯ টি (সর্বশেষ তথ্যসূত্র) । 

বর্তমানে বেসরকারী/প্রাইভেট ডেন্টাল কলেজ সংখ্যা কয়টি? 

বর্তমানে সরকারী ডেন্টাল কলেজ সংখ্যা ২৪ টি ( সর্বশেষ তথ্যসূত্র) । 

এখানে ভর্তি পরিক্ষা মডেল টেস্ট দিন 

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার রেজাল্ট দিবে কত তারিখে?

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার রেজাল পাব্লিশ হবে......... তারিখে( এখনো জানা যায়নি)।


ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার সরকারি আসন সংখ্যা কয়টি?

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ সালের বর্তমান সরকারি আসন সংখ্যা ৫৪৫ টি।

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার বেসরকারি আসন সংখ্যা কয়টি

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ সালের বর্তমান বেসরকারি আসন সংখ্যা ২৪  টি ( সর্বশেষ তথ্যমতে)। 

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার কয়দিন পর রেজাল্ট দিবে?

ডেন্টাল ভর্তি পরিক্ষা হওয়ার সাধারণত তিনদিনের মদ্ধে ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল দেওয়া হয় (তবে কখনো কখনো কমে বেশি হতে পারে) । 

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার রেজাল্ট এর লিংক কোনটি?

মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা বিষয়ে যাবতীয় তথ্যাদিসহ, রেজাল্ট ইত্যাদি নিচের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। 


মেডিকেল ভর্তি টিপস ২০২০-২০২১

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা হল চরম কম্পিটিশনের জায়গা, নিজেকে সবার থেকে এগিয়ে রাখতে হলে, সবার থেকে বেশি পরিশ্রম ও করতে হবে। মেধা বলে কিছু নেই সবই পরিশ্রমের খেলা। 

মেডিকেল ও ডেন্টাল এমবিবিএস  ভর্তি পরীক্ষা টিপস ২০২১

আমার মেডিকেলে পড়ার সৌভাগ্য হয়েছে তার কারণ ছিল নিবিড় ও কঠিন পরিশ্রম।
নিচের কথা গুলো মেনে চলতে পারলে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় চান্স পেয়ে যাবে এগুলো গল্প নয় আমার জীবনের ঘটে যাওয়া কিছু পরিশ্রমের উদাহরণ।
1)দৈনিক ১২-১৪ ঘন্টা পড়তে হবে।
2)দিনের আলো দেখার মত সময় নেই তোমার কাছে।
3)এই সময়ে না থাকবে বন্ধু না থাকবে কাছের মানুষ
4)অনলাইনে সময় দেওয়া যাবেনা, যেই সময় টায় ডাটা অন করতে সময় লাগবে তাতে এক লাইন পড়া হয়ে যাবে।
5) খাওয়ার সময় এক হাতে ভাতের প্লেট আরেক হাতে বই থাকবে, খাবার খাবে ঠিক তোমার চিন্তা ও চোখের দৃষ্টি বইয়ের দিকে থাকবে।
6)পড়তে পড়তে ঘুম আসবে তাই পড়ার টেবিলের কাছে ডিসে কিছু পানি রাখো, ঘুম আসলেই চোখে পানি দাও, আবার পড়, বসে পড়ে ঘুম আসলে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে অথবা হেটে হেটে পড়তে থাকো।
7)খুব বিরক্ত লাগলে যে বইব পড়তেছ তা ছেড়ে অন্য বই পড়, পাচ মিনিটের জন্যে একটি অডিও গান শোন।
8)যে টপিক্স গুলো মনে থাকেনা, তা ছোট ছোট কাগজে লিখে রেখে দাও বিভিন্ন পকেটে, হাটতে হাটতে পড়, কারো সাথে গল্পের ফাকেও পড়, টয়লেট এ গিয়েও দরকার হলে পড়।
9)পড়তে পড়তে এতটা অসভ্য হয়ে যাও, মানুষ তোমাকে কম পড়ার উপদেশ দেয়, তোমাকে নিয়ে সমালোচনা হয়।
10) রাতে ভাত কম খাবে, তাহলে ঘুম কম আসবে।
11)ফল, জুস, শরবত, কফি খেতে পার এনার্জি পাবে।
12)প্রতিটা বোর্ড প্রশ্ন এনালাইসিস করে পড়, বোর্ড প্রশ্নগুলো যেই টপিকস থেকে এসেছে সেই টপিকস টা উপড়ে ফেলো।
13)সেল্ফ কনফিডেন্স বাড়াও, একটা যদি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় সিট থাকে সেইটা আমার।
14)স্রষ্টার কাছে নিয়মিত প্রার্থনা কর, তোমার পরিশ্রম ও আল্লাহর ইচ্ছা দুইয়ে মিলেই তুমি হবে আগামি দিনের ডাক্তার। 

মেডিকেল ও ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ টিপস

15)সময় নষ্ট করোনা, এমনভাবে পড় চান্স যদি মা পাও মনে যেন না হয় ইস আরেকটু ভাল করে পড়লে হয়ে যেত।
16)0.25 নম্বরের জন্যে হাজার হাজার ছাত্রছাত্রীরা মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় চান্স পায়না।
17)40 নম্বরের কম পেলে প্রাইভেট মেডিকেল কলেজেও ভর্তি হওয়া যাবেনা।
18)জীবন একটা রেস এখানে থামার মত কোন সময় নেই, তুমি যতদিন দৌড়াবে ততদিন এগিয়ে থাকবে, যেদিন থেমে যাবে সেদিন থেকে পিছিয়ে যেতে থাকবে।
19)যেইটা বুঝতে সমস্যা হবে সেইটা এখন শুধু মনে রেখে দাও সঠিক উত্তর কোনটি।
20)ছোট ছোট ম্যাথ গুলো মুখস্থ করে নাও। 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা টিপস

21)বায়োলজি, কেমিস্ট্রি ও ফিসিএক্স ভালো করে পড়, আশা করি এতেই চান্স হবে।
22)আমি নিজে ইংলিশ দাগাইনি বললেই চলে, ৮৫ টা দাগাইছিলাম, ৬৮.৫ পেয়ে শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ, বরিশাল এ চান্স হয়েছিল আমার, ১৫২৭ তম মেরিট লিস্টে ছিলাম।
23) অনেকে ভাবে ঢাকায় কোচিং করতে হবে, সেইটা আসলে তাদের ভুল ধারণা। তুমি যদি ভালোভাবে পড় তবে কোচিং না করেও চান্স পেতে পারো। তবে আমি দিনাজপুর এ কোচিং করেছিলাম। 

(মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রীদের জন্যে মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা) 

24)সবচেয়ে বড় কথা আমি মাদ্রাসার ছাত্র ছিলাম, আমার সময় মাদ্রাসায় আলাদা কোন ইংলিশ গ্রামার ছিলনা। তাই মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের বলছি তুমি মাদ্রাসায় পড় বল পিছিয়ে যেওনা, জয় ছিনিয়ে আনা অসম্ভব কিছু না শুধু লেগে থাকো শেষ পর্যন্ত।
25)আবার ও বলতেছি অনলাইনে না থেকে টেবিলে গিয়ে বই খুলে দাগিয়ে দাগিয়ে পড়তে শুরু কর। 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার জন্যে কি বই পড়তে হবে?

  1. জীববিজ্ঞান 
  2. রসায়ন বিজ্ঞান 
  3. পদার্থ বিজ্ঞান 
  4. সাধারণ জ্ঞান
  5. ইংরেজি 
মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা বা ডেন্টাল ভর্তি পরিক্ষার জন্যে এই বইগুলো পড়তে হবে তা নিম্নে আলোচনা করা হল।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার বই উদ্ভিদ বিজ্ঞান

আবুল হাসান স্যার (অবশ্যই) এর উদ্ভিদ বিজ্ঞানের পাশাপাশি আজিবুর রহমান স্যারের বই
শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ভালো করে পড়তে হবে।
অবশ্যই শেষ ইডিশনের নতুন বই নিয়ে নিবে।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা বই প্রানিবিজ্ঞান

আজমল স্যারের বই এর পাশাপাশি আব্দুল আলীম স্যারের বই টা দেখে নিতে পারো!
শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ভালো করে পড়তে হবে।
অবশ্যই শেষ ইডিশনের নতুন বই নিয়ে নিবে।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার বই রসায়ন ১ম পত্র 

হাজারী ও নাগ স্যারের বই(অবশ্যই) পাশাপাশি সঞ্জিত কুমার গুহ স্যারের বই।
শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ভালো করে পড়তে হবে।
অবশ্যই শেষ ইডিশনের নতুন বই নিয়ে নিবে।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার বই রসায়ন ২য় পত্র 

হাজারী ও নাগ স্যারের রসায়ন ২য় পত্র বই(অবশ্যই) পাশাপাশি সঞ্জিত কুমার গুহ স্যারের রসায়ন ২য় পত্র বই।
শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ভালো করে পড়তে হবে।
অবশ্যই শেষ ইডিশনের নতুন বই নিয়ে নিবে।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার বই পদার্থ বিজ্ঞান১ম ও ২য় পত্র

ইসহাক স্যারের পদার্থ বিজ্ঞান দ্বিতীয় পত্র বই
শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ভালো করে পড়তে হবে।
অবশ্যই শেষ ইডিশনের নতুন বই নিয়ে নিবে। 
মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা মডেল টেস্ট পদার্থ বিজ্ঞান - প্রথম অধ্যায় : (ভৌত জগৎ ও পরিমাপ)

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার বই ইংলিশ 

এপেক্স ইংলিশ গ্রামার ও এর ভোকাবুলারির বই সাথে অবশ্যই বিগত বিসিএস, ঢাবি,রাবি ও মেডিকেল প্রশ্ন গুলি সলভ করে নিবে।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার বই সাধারণ জ্ঞান 

বায়েজিদ এর সাধারণ জ্ঞান বই।
বিসিএস,ঢাবি এবং মেডিকেল প্রশ্ন সলভ।
মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ এর সাধারণ জ্ঞান শুধু বাংলাদেশ ও মুক্তিযুদ্ধ থেকে আসবে। 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার জন্য গাইড বই সমূহ

রয়েল গাইড মেডিকেলের (বেস্ট)
রেটিনা ডাইজেস্ট

মেইন বই থেকে ৭৫ মার্ক্সস থাকবে, তাই মেইন বই নিখুঁত ভাবে পড়তে হবে।
মেইন বই এ ব্যাসিক ভালো করে নিলে মেইন বইয়ের জোড়েই চান্স নিশ্চিত ইনশাআল্লাহ। 

বিগত সালের মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন ও প্রশ্নের পরিসংখ্যান 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার বিগত সালের প্রশ্ন 

  1. Medical admission Question bank 2020-21 
  2. ২০১৯-২০ এর মেডিকেল ভর্তি প্রশ্ন
  3. ২০১৯-২০ এর মেডিকেল ভর্তি প্রশ্ন
  4. ২০১৯-২০ এর মেডিকেল ভর্তি প্রশ্ন
  5. ২০১৮-১৯ এর মেডিকেল ভর্তি প্রশ্ন
  6. ২০১৭-১৮ এর মেডিকেল ভর্তি প্রশ্ন
  7. ২০১৬-১৭ এর মেডিকেল ভর্তি প্রশ্ন
  8. ২০১৫-১৬ এর মেডিকেল ভর্তি প্রশ্ন
  9. ২০১৪-১৫ এর মেডিকেল ভর্তি প্রশ্ন
  10. ২০১৩-১৪ এর মেডিকেল ভর্তি প্রশ্ন
  11. ২০১২-১৩ এর মেডিকেল ভর্তি প্রশ্ন

ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার বিগত সালের প্রশ্ন 

অন্যান্য 

  1. মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা মডেল টেস্ট
  2. কেমিস্ট্রি প্রথম পত্র বিগত সালের প্রশ্নের পরিসংখ্যান 
  3. কেমিস্ট্রি দ্বিতীয় পত্র বিগত সালের প্রশ্নের পরিসংখ্যান 
  4. ফিজিক্স প্রথম পত্র বিগত সালের প্রশ্নের পরিসংখ্যান 
  5. ফিজিক্স দ্বিতীয় পত্র বিগত সালের প্রশ্নের পরিসংখ্যান 
  6. বায়োলজি প্রথম পত্র বিগত সালের প্রশ্নের পরিসংখ্যান 
  7. বায়োলজি দ্বিতীয় পত্র বিগত সালের প্রশ্নের পরিসংখ্যান 

আরো জেনে নিন: নার্সিং ভর্তি পরিক্ষা প্রস্তুতি ও সার্কুলার ২০২০-২০২১

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২০২১ লেকচার প্লান ( ২ মাসের মধ্যে) - ৩০ টি লেকচার প্লাস পরিক্ষা 

এক মাসে মেডিকেল ভর্তি প্রস্তুতির জন্যে রুটিন

1. Botany -1+2

2. Botany -3+4

3. Botany -5+6+7

4. Botany -8+9+10

5. Botany -11+12+Bangladesh History 

6. Zoology-1+2+3+Muktijuddho

7. Zoology-4+5

8. Zoology-6+7+8

9. Zoology-9+10

10. Zoology-11+12

11. Chemistry first part- 1+2

12. Chemistry first part-3+4

13. Chemistry first part-4+5

14. Chemistry second part-1+3

15. Chemistry second part-2

16. Chemistry second part-4+5

17. Physics first part -1+2+3+4+5

18. Physics first part -5+6+7+8+9+10

19. Physics second part -1+2+3+4+5

20. Physics second part -6+7+8+9+10

21. Botany paper final-------------

22. Zoology paper final-----------

23. Chemistry first paper final-

24. Chemistry first paper final-

25. Physics first paper final----

26. Physics first paper final----

27. GK paper final-------------------

28. English Paper final------------

29. Model Test 1+Gape-----------

30. Model Test 2+Gape-----------

মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষার জন্যে সহায়ক ফেসবুক ও হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ

মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা গ্রুপ

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার আগের দিন কি করবেন?

১. মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার কমপক্ষে ২ দিন আগে প্রিপারেশন শেষ করে ফেলো।মেডিকেল পরীক্ষার ঠিক আগের দিনটিতে পড়ালেখা করার কোন দরকার নেই বলবোনা, তবে ব্রেইনকে চাপ দেওয়া যাবেনা তাই রিল্যাক্স মুডে থাকতে হবে। নিজের সিট কোথায় পড়লো, সেটা একবার দেখে নিতে পারা ভালো। তাহলে পরীক্ষার দিন সকালে আর টেনশন হবেনা। ১ ঘন্টায় জিরো থেকে হিরো হয়ে যাবে তাই ১ ঘন্টা পরিক্ষা যেন ঠান্ডা মাথায় দিতে পারো সো কোন স্ট্রেস নিয়োনা।

২. মেডিকেল বা ভার্সিটির যেকোন পরীক্ষার প্রশ্ন পত্র ফাইনাল পরীক্ষার আগের রাতে আউট হয়েছে -এরকম খবর থেকে দূরে থাকবে আর শুনলেও বিচলিত হওয়া যাবেনা। তোমার প্রস্তুতি নেয়া থাকলে কেউ আটকাতে পারবে না তোমার চান্স পাওয়া কে, ভেবে নাও এটি মেধা যুদ্ধের ময়দান, যেখানে মেধা দিয়ে অন্যকে হারাতে হবে টাকা দিয়ে প্রশ্নপত্র কিনে পরীক্ষা দেওয়াতে ক্রেডিটের কিছু নেই। আল্টিমেটলি এগুলোর ক্ষেত্রে বেশিরভাগ তথ্যই গুজব। 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার দিন কি করবেন?

১. যেখানে সিট পড়েছে, সেই হল খুলে দেবার সাথে সাথেই রুমে প্রবেশ করুন আর ধীরস্থির হয়ে বসে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রগুলো যেমন কলম, পেন্সিল, ইরেজার, প্রবেশপত্র, ক্যালকুলেটর (যদি নিতে দেয়)ইত্যাদি গুছিয়ে নিন। প্রশ্নপত্র হাতে পাওয়ার পর সাবধানতার সাথে ঘরগুলো পূরণ করুন। কোন অবস্থাতেই যেন ও.এম.আর (OMR) ফরমের নির্ধারিত ঘরগুলো পূরণে ভুল না হয়।

২. প্রথম ত্রিশ মিনিটে সহজ ৫০-৬০ টি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে ফেলতে হবে। পরের বিশ মিনিটে বাকী ৩০-৩৫ টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে।

৩. শেষ ১০ মিনিটে রিভিশন দিন এবং কনফিউশান উত্তর গুলো দেওয়ার চেষ্টা করবেন তবে ১০০% দাগাতে হবে এমন ভাববেন না, আমি ৮৫ দাগিয়ে চান্স পেয়েছি। 

৪. একটি প্রশ্ন না পারলে সেটির পিছনে সময় নষ্ট না করে পরের প্রশ্নে চলে যাবেন।

৫. যেই প্রশ্নের সব অপশন অপরিচিত সেগুলো না দাগানোই উত্তম।

৬. যেই প্রশ্নের তিনটি অপশন বুঝতে পেরেছেন যে এটি হবে না তা হলে চতুর্থটিই হবে উত্তর।

৭. যে প্রশ্নে দুটি বুঝতে পেরেছেন যে হবেনা, কনফিউশান থাকবে বাকি দুটি অপশনে তখন মনের জোর যেদিকে সেটিকে দাগাবেন। 

৮. তবে অবশ্যই ৮০ টির নিচে দাগানো বোকামি হবে। আবার কমন নেই ১০০ টিই দাগিয়ে আসছেন সেটিও বোকামি। 

৯. একঘন্টা সময় আপনার জীবন বদলে দিবে নতুন রংগে

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার জন্যে কিছু মডেল টেস্ট 


মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ফলাফল/এমবিবিএস রেজাল্ট ২০২১

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ফলাফল ২০২০-২১ পাবলিশ হবে মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষার কয়েকদিন পর। রেজাল্ট পাব্লিশ হওয়ার সাথে সাথে আমাদের ওয়েবসাইটে পেয়ে যাবেন নিচের বক্স এ, নিচের ঘরে আপনার রোল নম্বর দিয়ে সাবমিট করুন, কোন সমস্যা হলে কমেন্ট করুন। 

এসএমএস এ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল 

মোবাইলে মেডিকেলের ফলাফল জানার জন্যে এস.এম.এস বা মেসেজ করার কোন প্রয়োজন নেই। যারা পাশ করেছে বা উত্তীর্ণ হয়েছে তাদের আবেদন করার সময় প্রদত্ত মোবাইল ফোন নম্বরে স্বয়ংক্রিয়ভাবে টেলিটক থেকে ওয়েলকাম মেসেজ জানিয়ে ফলাফল পৌঁছে যাবে।

বিগত ১০ বছরের মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন নম্বর 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২১ সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন নম্বর 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২১ সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর ২৮৭.২৫ ও মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২১ সর্বনিম্ন প্রাপ্ত নম্বর ২৬৬.৭৫, সরকারী মেডিকেল ভর্তি সর্বনিম্ন কাট মার্ক্স হচ্ছে ২৬৬.৭৫। পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী ১ লাখ ২২ হাজার ৪৭১ জন।পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৪০ নম্বর পেয়েছেন অর্থাৎ পাশ করেছেন মাত্র  ৪৭ হাজার ৯৭৫  জন। 

পরীক্ষা হওয়ার পর আপডেট করা হবে
মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা সর্বোচ্চ নম্বর ও সর্বনিম্ন নম্বর

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০১৯-২০২০ সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন নম্বর 

 মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০১৯-২০ সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর ৯০.৫ ও মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০১৯-২০ সর্বনিম্ন  প্রাপ্ত নম্বর।পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী হাজার জন।পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৪০ নম্বর পেয়েছেন অর্থাৎ পাশ করেছেন মাত্র ৪৯ হাজার ৪১৩ জন।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০১৮-১৯ সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন নম্বর 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০১৮-১৯ সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর ৮৭ ও মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২০১৮-১৯ সর্বনিম্ন প্রাপ্ত নম্ব ৫৭।পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী ৬৩ হাজার ২৬ জন।পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৪০ নম্বর পেয়েছেন, অর্থাৎ পাশ করেছেন মাত্র ২৪ হাজার ৯৬৮ জন।

বিগত ১০ বছরের মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন প্রাপ্ত নম্বর তালিকা 

মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা বর্ষসর্বোচ্চ নম্বর
সর্বনিম্ন নম্বর
২০২০-২১ ২৮৭.৫০২৬৮.০০
২০১৯-২০২৯০.৫০২৬৭.৫০
২০১৮-১৯  ২৮৭.০০২৫৭.০০
২০১৭-১৮ ২৮২.০০২৭০.৫০
২০১৬-১৭ ২৭৫.২৫২৬৪.২৫
২০১৫-১৬ ১৮৫.০০১৭৫.২৫
২০১৪-১৫১৬৯.০০১৫৬.৫০
২০১৩-১৪  ১৬৯.০০১৬৬.৫০
২০১২-১৩ ১৭৪.৫০১৬১.০০
২০১১-১২ ১৬৯.৫০১৫১.০০
২০১০-১১ ১৮৭.০০১৪৬.৭৫

মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা রেজাল্ট ২০১৭-২০১৮

সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর ২৮২.০০ এর মদ্ধে ৩০০ ও
সর্বনিম্ন প্রাপ্ত নম্বর ২৭০.৫০ এর মদ্ধে ৩০০।
পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী হাজার জন
পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৪০ নম্বর পেয়েছেন অর্থাৎ পাশ করেছেন মাত্র হাজার জন।

মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা রেজাল্ট ২০১৬-২০১৭

সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর ২৭৫.৭৫(৩০০) ও
সর্বনিম্ন প্রাপ্ত নম্বর ২৬৪.২৫ (৩০০)
পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী হাজার জন
পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৪০ নম্বর পেয়েছেন অর্থাৎ পাশ করেছেন মাত্র হাজার জন
মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা রেজাল্ট ২০১৫-২০১৬
সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর ১৮৫.৫০(২০০) ও
সর্বনিম্ন প্রাপ্ত নম্বর ১৭৫.২৫(২০০)
পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী হাজার জন
পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৪০ নম্বর পেয়েছেন অর্থাৎ পাশ করেছেন মাত্র হাজার জন

মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা রেজাল্ট ২০১৪-২০১৫

সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর ১৬৯.৫০(২০০)ও
সর্বনিম্ন প্রাপ্ত নম্বর ১৫৬.৫০ (২০০)
পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী হাজার জন
পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৪০ নম্বর পেয়েছেন অর্থাৎ পাশ করেছেন মাত্র হাজার জন
মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা রেজাল্ট ২০১৩-২০১৪
সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর ১৭৯.৫০ (২০০) ও
সর্বনিম্ন প্রাপ্ত নম্বর ১৬৬.৫০ (২০০)
পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী হাজার জন
পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৪০ নম্বর পেয়েছেন অর্থাৎ পাশ করেছেন মাত্র হাজার জন

মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা রেজাল্ট ২০১২-২০১৩

সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর ১৭৪.৫০(২০০)ও
সর্বনিম্ন প্রাপ্ত নম্বর ১৬১.০০(২০০)
পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী হাজার জন
পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৪০ নম্বর পেয়েছেন অর্থাৎ পাশ করেছেন মাত্র হাজার জন
মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা রেজাল্ট ২০১১-২০১২
সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর ও
সর্বনিম্ন প্রাপ্ত নম্ব
পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী হাজার জন
পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৪০ নম্বর পেয়েছেন অর্থাৎ পাশ করেছেন মাত্র হাজার জন

মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষা রেজাল্ট ২০১১-২০১২

সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর ও
সর্বনিম্ন প্রাপ্ত নম্ব
পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী হাজার জন
পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৪০ নম্বর পেয়েছেন অর্থাৎ পাশ করেছেন মাত্র হাজার জন।

সংক্ষেপে,

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় সর্বনিম্ন নম্বর

২০২০-২১ (আসিতেছে) 
২০১৯-২০
২০১৮-১৯ ২৫৭.০০
২০১৭-১৮ ২৭০.৫০ 
২০১৬-১৭ ২৬৪.২৫
২০১৫-১৬ ১৭৫.২৫ 
২০১৪-১৫ ১৫৬.৫০
২০১৩-১৪ ১৬৬.৫০
২০১২-১৩ ১৬১.০০ 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নম্বর

২০২০-২১ (আসিতেছে) 
২০১৯-২০ ২৯০.৫০
২০১৮-১৯ ২৮৭.০০
২০১৭-১৮ ২৮২.০০ 
২০১৬-১৭ ২৭৫.৭৫
২০১৫-১৬ ১৮৫.৫০
২০১৪-১৫ ১৬৯.৫০
২০১৩-১৪ ১৭৯.৫০
২০১২-১৩ ১৭৪.৫০

সরকারী মেডিকেলে পড়ার খরচ

সরকারী মেডিকেল কলেজে পড়ার খরচ কত?

সরকারি মেডিকেলে ভর্তি তে প্রায় ১০-২০ হাজার টাকা লাগে। মাইগ্রেশন করলে আরো ১০-২০ হাজার টাকা লাগতে পারে।
আর প্রথম বর্ষে বোন্স কিনতে হয় এজন্যে ৩০-৪০ হাজার টাকা লাগে, ফিনান্সিয়াল সমস্যা থাকলে দুই তিন জনে মিলেও বোন্স কেনা যায় এতে ১৫০০ টাকার মত লাগতে পারে।
আর বই বাবদ সর্বোচ্চ ৫০০০ টাকা লাগে প্রথম বর্ষে। সুতরাং মাইগ্রেশন না হলে ৪০-৫০ হাজার এ সব ম্যানেজ
করা পসিবল।
আর যদিও মাইগ্রেশন হয় তাহলে সর্বোচ্চ ৬০-৭০ হাজার টাকায় হয়ে যাবে।
সরকারি মেডিকেল কলেজগুলা তে থাকার জন্য প্রতি মাসে আলাদা চার্জ দিতে হয় না শুধু খাওয়ার জন্যে কিছু টাকা লাগে। আবার কেউ যদি কলেজ হােস্টেল ডাইনিংভখায় সেখানে সর্বোচ্চ ২০০০ টাকা লাগবে আর পকেট খরচ হিসেবে ২-৩ হাজার টাকা লাগতে পারে।
সুতরাং মাসে ৪০০০-৭০০০ টাকা দিয়ে যে কেউ ভাল ভাবে চলতে পারবে যদি বিলাসিতা না করে।
আমি মনে করি ৬ বছরে সর্বোচ্চ ৩-৩.৫ লাখ টাকার মধ্যে সব খরচ মিলেয়ে এমবিবিএস কম্পলিট করা সম্ভব।

প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ পড়ার খরচ 

মেডিকেল থেকে মেডিকেল ভিন্ন হয়। সাধারণত ৬ থেক ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত প্রাইভেট মেডিকেলে খরচ হতে পারে৷ বিভিন্ন মেডিকেলের খরচও বিভিন্ন। 

হোসটেল ফি হিসেবে প্রতি মাসে ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা খরচ হতে পারে।মাসিক বেতন হিসেবে দিতে হতে পারে প্রতি মাসে ৬ থেকে ৮ হাজার টাকা। এছাড়াও পরীক্ষার ফি জন্যে দিতে হতে পারে একটি নির্দিষ্ট টাকা। বিশেষ করে প্রফেশনাল পরীক্ষার আগে ফ্রম ফিলাপের জন্যে গুনতে হবে এ টাকা,এমবিবিএস শেষ করতে ৪ বার প্রফেশনাল পরীক্ষা দিতে হবে আর ৪ বার ফ্রম ফিলাপ ও করতে হবে। 

মেডিকেল কলেজ গুলোতে শুরুতে ভর্তির জন্যে যে পরিমাণ টাকা নিয়ে থাকে
বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজে ১৪ লাখ ৮০ হাজার, 
ঢাকা ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজে ১৫ লাখ ১০ হাজার টাকা, 
হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজে ১৫ লাখ টাকা
শাহাবুদ্দিন মেডিকেল কলেজে ১৬ লাখ টাকা
ইব্রাহিম মেডিকেল কলেজে ১৫ লাখ টাকা
নর্দান ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজে ১৩ লাখ ৯০ হাজার টাকা 
ইবনে সিনা মেডিকেল কলেজে ১৫ লাখ টাকা
শিকদার উইমেন্স মেডিকেল কলেজে ১৬ লাখ ৭২ হাজার টাকা
ইস্ট ওয়েস্ট মেডিকেল কলেজে ১৩ লাখ, 
এনাম মেডিকেল কলেজে ১৪ লাখ টাকা
আদ-দ্বীন মেডিকেল কলেজে ১১ লাখ ৯৮ হাজার টাকা
উত্তরা উইমেন্স মেডিকেল কলেজে ১৩ লাখ ২৫ হাজার টাকা এবং 
কমিউনিটি মেডিকেল কলেজে ভর্তি ফি ১১.৯৫ লাখ টাকা।

এছাড়াও বিভিন্ন ফি নেওয়া হয়। যেমনঃ-
টিউশন ফি,অ্যাফিলিয়েশন ফি, ক্যাম্পাসের উন্নয়ন ফি,বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রেশন ফি, বিএমডিসি রেজিস্ট্রেশন নম্বর  ফি, মার্কশিট ভেরিফিকেশন ফি, কেন্দ্র ফি, কলেজ ম্যাগাজিন ফি, গেমস ফি, স্পোর্টস ও অন্যান্য বিনোদন ফি, পরিচয়পত্র, কশন, লাইব্রেরি চার্জ, বিবিধ, সেশন, লাইব্রেরি ফি, জেনারেল ল্যাব ফি, কম্পিউটার ল্যাব, মার্কশিট ভেরিফিকেশন ফি, ইত্যাদি ফি দেওয়া লাগতে পারে।
আবাসিক সুবিধা নিলে থাকা-খাওয়া বাবদ শিক্ষার্থীদের এর জন্যেও ফি জমা দিতে হয়।কোনো কোনো প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ অগ্রিম সব খরচ নিয়ে নেয় আবার কোথাও আবার মাসিক ফি হিসেবে দিতে হয়।

লেখক:

Noman Islam Nirob

46th MBBS(final year) student,

Rangpur Medical  College 

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা/ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা/আর্মি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ও মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষায় চান্স পাওয়ার পর কোন কিছু জানার জন্যে আমাদের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করলে জানানো হবে অথবা নিচের ফেসবুক লিংকে মেসেজ দিতে পারেন। 

আমাদের তথ্য আপনার কাজে লাগলে শেয়ার করিয়েন। কোন ভুল ত্রুটি পেলে জানাবেন ঠিক করে নিবো। 

No comments:

Don't spam in this Website.
(Remember : You can write guest post in this site then I accept your link).
Email us For Guest post : nomanislamnirob@medicartbd.com

welcome to visit our website(www.doctorsgang.com).It is best learning platform of medical science in the world.
Powered by Blogger.